১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার,রাত ৯:১৪

সিলেটে ফের বন্যা, বাড়ছে নদ-নদীর পানি

প্রকাশিত: জুন ১৯, ২০২৪

  • শেয়ার করুন

 

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও গত দুইদিনের টানা বৃষ্টিতে সিলেটের তিনটি নদীর ৬টি পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া আরও কয়েকটি পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার কাছাকাছি অবস্থান করছে। হু হু করে বাড়ছে নদ-নদীর পানি। এতে করে সীমান্তবর্তী কোম্পানীগঞ্জ ও গোয়াইনঘাট উপজেলার অনেক এলাকা তলিয়ে গেছে। মঙ্গলবার (১৮ জুন) সকালে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের সংশ্লিষ্টরা।

গত রোববার (১৬ জুন) রাত পর্যন্ত জেলা প্রশাসন সিলেট জেলায় প্রায় দেড় লাখ মানুষ পানিবন্দী থাকার তথ্য দিলেও স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে- আজ মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত দুই লাখের বেশি মানুষ বন্যা কবলিত। এর মধ্যে নগরীর প্রায় ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দী।

বন্যা কবলিত মানুষের মাঝে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঈদের দিন (সোমবার) কোরবানির পশুর মাংস, শুকনো খাবার, স্যালাইন ও ওষুধ সরবরাহ করা হয়েছে।

২০ দিনের মাথায় দ্বিতীয় দফা বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে সিলেট। গত ২৭ মে সিলেটে আগাম বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এতে জেলার ১৩টি উপজেলার সাড়ে ৭ লাখ মানুষ আক্রান্ত হন। সেই বন্যার পানি পুরোপুরি নামার আগেই গত শনিবার (১৫ জুন) ফের বন্যা কবলিত হয় সিলেট।

রোববার (১৬ জুন) রাতে সিলেট জেলা প্রশাসন জানায়, জেলার ১৩টির মধ্যে ১০টি উপজেলার প্রায় দেড় লক্ষ মানুষ পানিবন্দী। তবে সোমবার (ঈদের দিন) ভোররাত থেকে সিলেটে ঝরতে শুরু করে ভারী বৃষ্টি। সঙ্গে নামতে থাকে উজানের ঢল। ফলে সোমবার সকালের মধ্যেই প্রায় সকল উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি দেখা দেয়। এছাড়া সিলেট মহানগরীর অধিকাংশ এলাকা হয় প্লাবিত। নগরের অনেক গুরুত্বপূর্ণ ও প্রধান সড়ক তলিয়ে যায় পানিতে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মহানগরের সব নিচু এলাকা পানিতে নিমজ্জিত। বিশেষ করে শাহজালাল উপশহর প্রায় পুরোটাই পানির নিচে। অনেকের বাসার নিচতলায় কোমর পানি। এছাড়া যতরপুর, মেন্দিবাগ, শিবগঞ্জ, রায়নগর, সোবহানীঘাট, কালিঘাট, কামালগড়, মাছিমপুর, তালতলা, জামতলা, কাজিরবাজার, মাদিনা মার্কেট, দরগা মহল্লা, আখালিয়া ও মেজরটিলাসহ মহানগরের অধিকাংশ এলাকা বন্যা কবলিত।

সিলেট জেলা প্রশাসন সূত্র ঈদের দিন রাতে জানিয়েছে, সব উপজেলায় মোট ৫৩৮টি অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রয়েছে। এর মধ্যে ৫টি উপজেলার বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে ৩৪৩ জন আশ্রয় নিয়েছেন।

এদিকে, ঈদের দিন বাসা-বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকে পড়ায় সিলেট মহানগরের কোরবানিদাতারা পড়েন বেশ বিপাকে। অনেকে ভোগান্তির সঙ্গে মঙ্গলবার পশু কো

কোরবানি করেছেন। অনেকে অপেক্ষা করেছিলেন পানি কমার। কিন্তু আজ সকাল থেকে মহানগরে আরও পানি বাড়ায় তারাও পড়েছেন বিপাকে।

এছাড়া মহানগরের মধ্যে অনেক প্রধান ও গুরুত্বপূর্ণ সড়কে পানি রয়েছে। এয়ারপোর্ট সড়ক, সিলেট-তামাবিল সড়ক, দক্ষিণ সুরমার বঙ্গবীর রোডসহ বিভিন্ন সড়কের বেশ কয়েকটি স্থান পানির নিচে।

জানা গেছে, গোয়াইনঘাট ও কোম্পানীগঞ্জসহ কয়েকটি উপজেলার গ্রামীণ অনেক রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। অনেক কৃষিজমির ফসল তলিয়ে গেছে, ভেসে গেছে পুকুরের মাছ।

ঈদের দিন দুপুরের পর বৃষ্টি থামলে নামতে শুরু করে নগর এলাকার পানি। তবে মঙ্গলবার ভোর থেকে ফের শুরু হয় সিলেটে বৃষ্টিপাত। ফলে আজ সকাল থেকে আবারও বাড়তে শুরু করে সিলেট মহানগরের পানি। অনেক এলাকার গতকালের চেয়ে আজ পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়া নতুন নতুন সড়ক ও বাসাবাড়ি ডুবেছে বলে জানিয়েছেন বাসিন্দারা।

এদিকে, টানা ভারী বৃষ্টিতে নদী ও ছড়া উপচে পানি নগরীতে প্রবেশ করে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এতে সিলেট নগরীর ভেতরে অনেক বাসাবাড়িতে পানি উঠেছে।

সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্রে জানা যায়, সোমবার সকাল ৯টা সুরমা নদীর পানি কানাইঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ১৩৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। একই নদীর পানি সিলেট পয়েন্টে ২২ সেন্টিমিটার বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

জকিগঞ্জের কুশিয়ারা নদীর পানি অমলসীদ পয়েন্টে ১৫ সেন্টিমিটার ও একই নদীর পানি ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে ৭৯ সেন্টিমিটার বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সারি নদীর পানি সারিঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ৩৫ সেন্টিমিটার ও সারি গোয়াইন নদীর পানি গোয়াইনঘাট পয়েন্টে ১৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া সব নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

সিলেট আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ শাহ মো. সজিব হোসেন জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘণ্টায় (সোমবার সকাল ৬টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৬টায়) সিলেটে ১৫৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে ও সকাল ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত ৪৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। আগামী দুইদিন সিলেটে টানা বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে সংস্থাটি।

এদিকে, ভারতের আইএমডি’র তথ্যমতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৯৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।

সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী দীপক রঞ্জন দাশ বলেন, ভারতের মেঘালয়ে বৃষ্টিপাতের ফলে পাহাড়ি ঢল নেমে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। ভারতে বৃষ্টিপাত কমে এলে পরিস্থিতির উন্নতি হবে।

অপরদিকে, গোয়াইনঘাট উপজেলায় পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে বলে জানা গেছে । সেখানকার উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুল ইসলাম ক্ষুদে বার্তায় ইতোমধ্যে সংশ্লিষ্টদের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করার জন্য বলেছেন। পাশাপাশি উদ্ধার কাজ, আশ্রয় কেন্দ্র ব্যবস্থাপনা খাবার, ত্রাণ বিতরণ বিষয়ে পরিকল্পনা ও প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।

  • শেয়ার করুন